পনীর তৈরি

সম্ভাব্য পুঁজি

পনীর তৈরিতে বেশি পরিমান পূঁজির প্রয়োজন হয় না। মোটামোটি ১০০০০ টাকা থেকে ২০০০০ টাকা পর্যন্ত পূঁজি হলেই যথেষ্ট।

ব্যাংকঃ

সোনালী ব্যাংকঃ http://www.sonalibank.com.bd/

জনতা ব্যাংকঃ http://www.janatabank-bd.com/

রূপালী ব্যাংকঃ http://www.rupalibank.org/rblnew/

অগ্রণী ব্যাংকঃ http://www.agranibank.org/

বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকঃ www.krishibank.org.bd/

এনজিও

আশাঃ http://asa.org.bd/

গ্রামীণ ব্যাংকঃ http://www.grameen-info.org/

ব্রাকঃ http://www.brac.net/

প্রশিকাঃ http://www.proshika.org/

সম্ভাব্য লাভ

৫০ লিটার দুধ থেকে প্রায় ৮ কেজি পনির তৈরি করা যায়। ৫০ লিটার দুধের মূল্য ২ হাজার টাকা। এক কেজি পনির বিক্রি করা যায় ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা।

সুবিধা

মুদি দোকান থেকে মেগাশপ সর্বত্রই এর চাহিদা রয়েছে। ভালো বিক্রয় কর্মী নিয়োগ দিয়ে বাড়িতে বাড়িতেও সাপ্লাই দেওয়া সম্ভব।

প্রয়োজনীয় উপকরণ

দুধ, বড় গামলা, রেজিন ও ছাঁচ, ছাঁকনি, বাঁশের টুকরি, ইত্যাদি।

প্রস্তুত প্রণালি

বড় গামলায় কাঁচা দুধ ঢেলে নিয়ে পরিমান অনুযায়ী রেজিন ও ছাঁচ দিতে হবে। এরপর ৪/৫ ঘন্টা ঢেকে রাখতে হবে। দুধে ছানা জমে গেলে আলাদা করে ফেলতে হবে। ছেঁকে নেওয়া ছানা বিশেষভাবে তৈরি করা বাঁশের টুকরিতে রেখে আর একটি বাঁশ দিয়ে ঢেকে ৭/৮ ঘণ্টা রাখতে হবে। এরপর বাঁশের টুকরি খুলে পনিরের গায়ে ছিদ্র করে প্রয়োজন মতো লবণ দিয়ে দিতে হবে। লবণ মাখানোর পর পনির শক্ত হওয়ার জন্য আবার ৪৮ ঘণ্টা রেখে দিতে হয়। এরপর সাইজমতো কেটে নিয়ে বাজারে বিক্রি করা হয়। সাধারণত গরুর দুধের পনির দেখতে গ্রে কালারের হয়। আর মহিষের দুধের পনির সাদা হয়।

বাজারজাতকরণ

মুদি দোকান কিংবা মেগাশপে যোগাযোগ করে সরবরাহ করা যায়। বিদেশেও রপ্তানির সুযোগ আছে।

প্রশিক্ষণ

খাদ্য, পুষ্টি বিষয়ে জানতে হবে। প্রশিক্ষন পাওয়া যাবে এমন বই এর সহযোগিতা নিতে পারেন। এছাড়া রান্না শেখান এমন স্কুলে যোগাযোগ করতে পারেন।

প্রশিক্ষন প্রদানকারী সংস্থা:

ব্রাকঃ http://www.brac.net/

যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরঃ www.dyd.gov.bd

বিসিকঃ http://www.bscic.gov.bd/

মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরঃ http://www.dwa.gov.bd/

তথ্য: 
তথ্য আপা প্রকল্প